তেলেঙ্গানায় মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০, ফসলের ক্ষতি প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা


গভীর নিম্নচাপের জেরে লাগাতার বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত  হায়দ্রাবাদ। কয়েকদিন ধরেই তেলেঙ্গানা, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, কর্নাটকে যে হারে বৃষ্টি হয়েছে তাতে সবচেয়ে বেশি বিপজ্জনক অবস্থা হায়দ্রাবাদে। শুধু দোকানপাট বা গাড়ি নয় জলের তোড়ে ভেসে যাচ্ছে  মানুষও, হায়দ্রাবাদে বৃষ্টির এমন ভয়ঙ্কর দৃশ্য দেখা যাচ্ছে বিগত কয়েকদিন ধরেই ,মঙ্গলবার রাত থেকে শুরু হয় বৃষ্টি। তেলেঙ্গানায় বৃষ্টিতে প্রাণ গেছে কমপক্ষে ৫০ জনের। মহারাষ্ট্রেও ব্যপক বৃষ্টিতে প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ২৭ জন। সাংলিতে ৯ জন, সোলাপুর এ ১৪ জন ও পুণেতে অধিক বর্ষনে মৃতের সংখ্যা ৪।

বন্যার পরিস্থিতি  তৈরী হয়েছে কর্নাটকের বিভিন্ন স্থানে।  ইয়াদগির, বল্লারি, বিদার, বিজয়পুরা, , বেলাগাভি, দক্ষিণ কন্নড়,ধারওয়াদ, বেলাগাভি, উদাপি, উত্তর কন্নড়, গদগ, কোপ্পাল, হাভেরি প্রভৃতি স্থান জলমগ্ন। অতিরিক্ত  বৃষ্টির ফলে মৃত্যু সংখ্যা লাগাতার বাড়ছে তেমনই সমস্ত রাজ্যেই ফসলেরও প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। শুধুমাত্র তেলেঙ্গানাতেই ফসল ক্ষতির পরিমান প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকা। অতিরিক্ত বৃষ্টিতে  তেলেঙ্গানা, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র এবং কর্নাটকে বন্যা পরিস্থিতি তৈরী হওয়ায় বাঁধ থেকে জল ছাড়ায় নদীর জলস্তর অনেক বেড়ে গেছে। 


বিভিন্ন স্থানে ত্রাণ শিবির গড়ে তোলা হয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত স্থান থেকে বাসিন্দাদের নিরাপদ স্থানে পাঠানো হচ্ছে। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে ভারতীয় সেনাবাহিনী, বায়ুসেনা, নৌসেনা ও  মহারাষ্ট্রের সরকারি আধিকারিকদের পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য তৈরি থাকতে বলেছেন।পুনে, সোলাপুর, সাংলি, সাতারা,  কোলাপুর, এইসব পশ্চিম মহারাষ্ট্রের জেলাগুলিতে বৃষ্টির প্রভাব সবচেয়ে বেশি। 
জলমগ্ন অবস্থা থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে প্রায় ২০ হাজার মানুষকে।মুম্বইয়ের বেশিরভাগ রাস্তাঘাট জলমগ্ন। 


লাগাতার বৃষ্টিতে হায়দ্রাবাদে প্রায় সমস্ত রাস্তাঘাট জলে ডুবে গেছে। হায়দ্রাবাদে ৪৪ হাজার মানুষকে এখনও পর্যন্ত উদ্ধার করে ত্রাণ শিবিরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।গ্রেটার হায়দ্রাবাদ  মিউনিসিপাল কর্পোরেশন এবং এনডিআরএফ জোটবদ্ধ হয়ে উদ্ধারকাজ চালাচ্ছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপ ক্রমশ আরবসাগরের দিকে অগ্রসর হয়ে আরও শক্তি সঞ্চয় করে নিম্নচাপের আকার নেবে এবং তার সাথে শক্তিশালী ঘূর্ণাবর্তের কারণে আগামী ৪৮ ঘণ্টা ভারী বৃষ্টির হতে পারে বলে সতর্কতা জারি করা হয়েছে আইএমডি সূত্রে।

Recent Content