অর্থ সাশ্রয়ের উপায় ও বিভিন্ন ইনভেস্টমেন্ট আইডিয়া – How To Save Money Bangla Guide, Best Investment Ideas in Bengali


 অর্থ উপার্জনের পাশাপাশি সঞ্চয়ও প্রয়োজন। আর দেখতে গেলে টাকা উপার্জনের থেকেও কঠিন হলো টাকা বাঁচানো, সেইজন্যেই আজ আমরা এই পোস্টটিতে বলবো কিভাবে আপনি কিছু সহজ উপায় অবলম্বন করলে অনেক টাকা বাঁচাতে পারেন।

অর্থ সাশ্রয়ের কয়েকটি উপায় হল – 

১. মাসকাবারি বাজার করুন প্রয়োজন অনুযায়ী

আপনি প্রতি মাসে মাসকাবারি বাজার করে আনেন, তার মধ্যে এমন অনেক জিনিস নিয়ে আসেন যা হয়তো আছে, বা যার কোনো প্রয়োজন লাগেনা, তেমন জিনিসও নিয়ে নিয়েছেন আপনি, এতে খরচ বেশি হয়, তাই প্রতি মাসে কোন জিনিস কতটা পরিমান লাগে, সেই অনুযায়ী হিসেব করে জিনিস কিনুন। 

মাসকাবারি বাজার করুন প্রয়োজন অনুযায়ী

শপিং মল থেকে এইসব জিনিস কেনার সময় এমন অনেক কিছুই আপনাকে নেওয়ার জন্য উৎসাহ দেওয়া হয় যা হয়ত আপনি কিনতে চান না, কিন্তু তারা এমনভাবে আপনাকে জিনিসগুলির প্রতি প্রলোভন তৈরী করে দেয় যে আপনি কিনে ফেলেন। 

যখনই মাসকাবারি বাজার করবেন মনে রাখবেন অপ্রয়োজনীয় জিনিস থেকে দূরে থাকার কথা। 

 ২. স্বয়ংক্রিয় সাবস্ক্রিপশন এবং সদস্যতা বাতিল করুন

  আপনি নেটফ্লিক্স, হটস্টার, অ্যামাজন প্রাইমের মতো একাধিক সাবস্ক্রিপশনের জন্য অর্থ প্রদান করছেন যা হয়তো আপনি নিয়মিত ব্যবহারই করেন না, যতটা সম্ভব এইসব  সাবস্ক্রাইব বাতিল করুন । 

 স্বয়ংক্রিয় সাবস্ক্রিপশন এবং সদস্যতা বাতিল করুন
Netflix

 নেটফ্লিক্স এবং আরও কিছু স্ট্রিমিং পরিষেবা আপনাকে দুই বা ততোধিক স্ক্রিন থেকে আপনার প্রিয় শো দেখতে দেয়। চেষ্টা করুন সেগুলো ব্যবহার করতে। 

 ৩. যে কোনো জিনিস কেনার ক্ষেত্রে দাম বা ব্র‍্যান্ড দেখবেন না

অনেকেই আছেন যারা ব্র‍্যান্ডেড জিনিস ছাড়া কিছু কেনেন না, বা কোনো জিনিস পছন্দ হল কিন্তু তার দাম কম দেখে ভাবলেন জিনিসটির মান ভালো হবে না, তাই সেটা রেখে দিলেন। এভাবে কিন্তু আপনি কখনো সঞ্চয় করতে পারবেন না। 

জিনিস কেনার ক্ষেত্রে দাম দেখবেন না
জিনিস কেনার ক্ষেত্রে দাম দেখবেন না

এমন অনেক জিনিস আছে যা হয়ত ব্র্যান্ডেড নয় বা হয়ত দাম কম তাই বলে তা খারাপ মানের এমন ভাবার কারণ নেই, কম দামেও অনেক ভালো জিনিস পাওয়া যায়। শুধু আপনাকে জিনিসের মান দেখে নিতে হবে। 

৪. টিভি চ্যানেল বেছে নিন-

 আপনি কেবল টিভি বা ডিটিএইচ ব্যবহার করেন যেখানে অনেক চ্যানেল আছে যার মধ্যে বেশিরভাগ চ্যানেল আপনি কখনোই দেখেন না, এমন চ্যানেল গুলো বাদ দিয়ে শুধুমাত্র যেই চ্যানেল গুলো আপনি দেখেন সেগুলোই অ্যাক্টিভেট করুন।  দেখবেন আপনার মাসিক প্যাকেজ অনেক কমে যাবে। 

জেনে নিন টিআরপি এর মানে? কিভাবে টিভির কোনো শো এর জনপ্রিয়তা মাপা হয় ?

 ৫. অপ্রত্যাশিত আয় অযথা ব্যয় করবেন না

 যখন আপনি কাজের মধ্যে বোনাস পান , বা অন্য কোন ভাবে বেশ অনেকটা অর্থ অপ্রত্যাশিত ভাবে আয় করেন তখন সেই টাকা ব্যঙ্ক এ রেখে দিন, 

বা সেই টাকা থেকে কিনে রাখুন সোনা, যা আপনার প্রয়োজনে পরে কাজে আসবে৷ 

 ৬. হিসেব করে বিদ্যুৎ খরচ করুন

 যখন তখন এসি, ফ্যান চালিয়ে দেবেন না, প্রয়োজনে ঘরের সমস্ত জানলা দরজা খোলা রাখুন।  লাইট দিনের বেলায় অফ রাখুন।

৭. শপিং অ্যাপ ডিলিট করুন – 

সঞ্চয় করতে চাইলে প্রথমেই ডিলিট করুন অনলাইন শপিং অ্যাপ।  বিভিন্ন সময় অনলাইন অ্যাপ গুলিতে নানা রকম ডিসকাউন্ট অফার দেওয়া হয়, যা দেখে আমরাও কিনবো না ভেবে কিছু না কিছু কিনে ফেলি। আর খরচ হয়ে যায় অনেকটা টাকা। 

ডিলিট করুন অনলাইন শপিং অ্যাপ
Amazon Shopping App

 ৮. লাঞ্চ প্যাক করুন 

 আপনার অফিসের পাশেই একটা ভালো রেস্টুরেন্ট আছে যেখানে প্রায়ই আপনি লাঞ্চ সেরে নেন, বা ফেরার সময় ডিনার করে ফেলেন, তাহলে অবশ্যই আপনি রোজ বাড়ি থেকে টিফিন প্যাক করে নিয়ে যাবেন, কারন বাইরের খাবারের অভ্যাস হয়ে গেলে আপনার যেমন অনেকটা খরচ বাড়বে তেমনি আপনার শরীরও ভালো থাকবে।  

 ৮. লাঞ্চ প্যাক করুন

 শুধু তাই নয়, আপনি প্রায়শই এক সপ্তাহের মূল্যমানের মুদি দু’বারের খাবারের মতো একই দামে কিনতে পারেন।  পরিবর্তে, বাড়িতে আপনার খাবার প্রস্তুত করুন এবং মাসে মাসে আপনার সঞ্চয় পাইলটি দেখুন।

 ৯. দরদাম করতে শিখুন

 আপনি যে কোনো জিনিস কিনতে গেলে বিক্রেতা যা দাম চায় আপনি সেটাই দিয় ফেলেন, এবার থেকে আর তা করবেন না, আপনি দরদাম করে দেখবেন আপনার পছন্দসই জিনিস অনেক কম দামেও আপনি পেয়ে যেতে পারেন। 

১০. বাজেট করে চলুন

 আপনার হাতে টাকা একেবারেই সঞ্চয় হয় না, আসলেই খরচ হয়ে যায়, প্রথমেই একটি বাজেট করুন, কোন খাতে কত ব্যয় হয় সেটা হিসেব করে রাখুন, সেই হিসেবেই খরচ করুন এবং চেষ্টা করুন আয়ের থেকে কিছু টাকা যেন প্রতিমাসে জমাতে পারেন। 

 ১১. কফি শপ এড়িয়ে যান

 আপনার বন্ধুরা আপনাকে কফি শপে দেখা করতে বলছে, কিন্তু আপনি জানেন কফি শপে গেলেই অনেকটা অর্থ ব্যয় হবে, চিন্তা না করে আপনার বন্ধুকে ঘরে আমন্ত্রণ জানান এবং ঘরের বানানো কফির মজা নিন । 

 ১২. গ্রন্থাগারে যাওয়ার অভ্যাস বাড়ান

গ্রন্থাগার
গ্রন্থাগার

 আপনার একটি বইয়ের দুটি, বা তিনটি পৃষ্ঠা দরকার নোট বানানোর জন্য, আর তাই আপনি অনলাইনে অর্ডার করছেন সেই বইটি, এমন না করে বরং আপনার স্থানীয় গ্রন্থাগারে গিয়ে দেখুন সেই বই আছে কিনা, যদি থাকে তাহলে আপনার আর দরকার নেই বইটি ক্রয় করার।  

 ১৩ . অপ্রয়োজনীয় সমস্ত কিছু বিক্রয় করুন

আপনার বাড়ির যে জিনিসগুলি আপনি ব্যবহার করেন না সেগুলি পড়ে খারাপ হয়ে যাচ্ছে সেগুলি বিক্রি করে দিন।এতে আপনার অর্থ সাশ্রয় হবে।

১৪.  নিয়ন্ত্রণ রাখুন নিজের শখের উপর

আপনার হয়তো শাড়ি কেনা একটি শখ, বা গয়না কেনা, তবে যদি আপনি খরচ কমিয়ে সঞ্চয় করতে চান তাহলে আগেই আপনাকে নিজের শখের উপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে হবে।  চেষ্টা করুন সেল এর সময় আপনার পছন্দের জিনিস কেনার, তাহলে আপনার অর্থ সাশ্রয় হবে। 

১৫. ধূমপান বন্ধ করুন

১৫. ধূমপান বন্ধ করুন
ধূমপান বন্ধ করুন

 ধূমপান বাজে খরচ তো বটেই, এটি স্বাস্থ্যের পক্ষেও ক্ষতিকারক,  যাদের ধূমপানের নেশা আছে তাদের পক্ষে এটি অবশ্যই সহজ নয়, তবে আপনি নিজে বিবেচনা করে দেখুন স্বাস্থ্যহানি হয় এমন একটি জিনিসের পেছনে আপনি বছরে কতটাকা খরচ করেন। তাই ধূমপান বর্জন করুন। এতে আপনার সঞ্চয় বাড়বে পাশাপাশি আপনার স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে।  

বিভিন্ন ইনভেস্টমেন্ট আইডিয়া – Simple Investment ideas in Bengali to save money

১. স্টক মার্কেট-

যদি আপনি ঝুঁকিপূর্ণ কিন্তু লাভজনক বিনিয়োগে আগ্রহী থাকেন তাহলে সংস্থাগুলির শেয়ার কিনে এককালীন বিনিয়োগের পরিকল্পনা করতে পারেন।  আপনি এই শেয়ারগুলি স্টক মার্কেট নামে একটি মার্কেটপ্লেসে ট্রেড করতে পারেন।

স্টক মার্কেট
স্টক মার্কেট

২. ফিক্সড ডিপোজিট –

এটি সবচেয়ে নিরাপদ বিনিয়োগ যেখানে আপনাকে নির্দিষ্ট সময় অন্তর স্থির সুদের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়।  ব্যাংক ও এনবিএফসি (নন-ব্যাংকিং আর্থিক সংস্থাগুলি) দ্বারা স্থির আমানত দেওয়া হয়। 

 ৩. মিউচুয়াল ফান্ড –

এগুলি একটি তহবিল পরিচালকের দ্বারা পরিচালিত সম্মিলিত বিনিয়োগের স্কিম যা লোকেদের অর্থ সরবরাহ করে এবং বিভিন্ন সংস্থার স্টক এবং বন্ডে বিনিয়োগ করে এবং একটি রিটার্ন তৈরি করে। এই বিনিয়োগও কিছুটা ঝুঁকি থাকে। 

 ৪. এসসিএসএস –

প্রবীণ নাগরিকদের জন্য এই প্রকল্পটি, ৬০ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য একটি ভালো বিনিয়োগ পরিকল্পনা,   এটি একটি সরকারী  দীর্ঘমেয়াদী সংরক্ষণের প্রকল্প যা অবসর গ্রহণকারীদের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখে তৈরি করা হয়েছে। এসসিএসএস সুদের হার ৭.৪% ধার্য করা হয়েছে। এটি ভারতের বিভিন্ন ছোট সঞ্চয় স্কিমগুলির মধ্যে সর্বোচ্চ সুদের হার। এসসিএসএস পাবলিক / প্রাইভেট সেক্টর ব্যাংক এবং ভারত পোস্ট অফিসে উপলব্ধ। 

 ৫. পিপিএফ –

পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড

পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড হ’ল ভারতের অন্যতম সাধারণ এবং বিশ্বস্ত বিনিয়োগের পরিকল্পনা।  এটি বার্ষিক সুদের হার প্রদান করে এবং বার্ষিক বিনিয়োগের জন্য সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা প্রয়োজন।  পিপিএফ অ্যাকাউন্টে এক বছরে একক কিস্তিতে অথবা এক বছরে সর্বাধিক ১২ কিস্তিতে বিনিয়োগ করা যায়। পিপিএফ প্রকল্পের মেয়াদ ১৫ বছর। 

Viral Telegram Channel 🔥

Recent Posts