সন্দীপ মাহেশ্বরীর জীবনী~একটি অনুপ্রেরণা, Sandeep Maheshwari biography in bengali


সাফল্য এবং সুখের সন্ধান হেতু সংগ্রামে ব্যর্থ হয়েও এগিয়ে যাওয়া, লক্ষ লক্ষ মানুষদের কাছে অনুপ্রেরণার অন্যতম একটি নাম হল সন্দীপ মহেশ্বরী । তিনি এমনই এক ব্যক্তিত্ব যিনি নিজের জীবনের প্রতিকূলতাকে চাবিকাঠি করে সাফল্যের চরম শিখরে পৌঁছেছিলেন । একজন লাজুক প্রকৃতির ছেলে কালক্রমে কীভাবে একজন জীবন বদলে দেওয়া বক্তা হয়ে উঠলেন যাকে আমরা বলি motivational speaker ,সন্দীপ মাহেশ্বরীর পুরো জীবনটা তারই এক অমূল্য গাথা। অন্য কোন মধ্যবিত্ত লোকের মতোই তাঁর ও অনেক অস্পষ্ট স্বপ্ন এবং জীবনের লক্ষ্যগুলির প্রতি অস্পষ্ট দৃষ্টি ছিল। কিন্তু তাঁর সেই স্বপ্নগুলো তিনি তাঁর অদম্য ইচ্ছাশক্তি ও মনোবল দিয়ে সত্যিতে পরিণত করতে পেরেছিলেন ।

সন্দীপ মাহেশ্বরীর জীবনী~একটি অনুপ্রেরণা

এক ঝলকে সন্দীপ মাহেশ্বরী, Success story of Sandeep Maheshwari

সন্দীপ মহেশ্বরীকে ভারতের অন্যতম বিখ্যাত উদ্যোক্তা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়ে থাকে । তাঁর অনুপ্রেরণামূলক গল্প এবং কথা তরুণ মনকে বার বার উদ্বুদ্ধ করে আর তাঁর সেই দক্ষতার কারণেই তিনি ভারতীয় যুব সমাজের মধ্যে আজ সর্বাধিক জনপ্রিয় এক ব্যক্তিত্ব । তিনি বারবার ব্যর্থ হয়েছেন বিভিন্ন সময়ে কিন্তু তিনি হার না মেনে সেইসব উদ্যোগগুলি থেকে শিক্ষা গ্রহণের পরে, কঠোর উপায়ে সাফল্য অর্জন করেছেন। স্বনির্মিত পেশাদার ব্যবসায়ী হয়ে ওঠার পাশাপাশি, ভারতের শীর্ষ উদ্যোক্তাদের তালিকায় তাঁকে একটি বিশেষ স্থান দেওয়া হয় । তিনি ইমাজেসবাজার ডটকমের মালিক, যা ভারতীয় মডেলদের স্টক ফটো সম্পর্কিত অন্যতম বৃহত্তম অনলাইন প্ল্যাটফর্ম। এই ওয়েবসাইট টি হাজার হাজার ফটোগ্রাফার এবং লক্ষ লক্ষ মডেলকে সংযুক্ত করতে সক্ষম হয়েছে এবং আজ তা সফলভাবে নিজের কার্য সম্পাদন করে চলেছে।

এক ঝলকে সন্দীপ মাহেশ্বরী

জওহরলাল নেহেরু – স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ~ Jawaharlal Nehru Biography in Bengali

প্রাথমিক জীবন, Early life of Sandeep Maheshwari

১৯৮০ সালের ২৮ শে সেপ্টেম্বর সন্দীপ মাহেশ্বরী র জন্ম হয় ভারতবর্ষের রাজধানী দিল্লিতে। তাঁর বাবা রূপ কিশোর মাহেশ্বরী ছিলেন একজন নামকরা অ্যালুমনিয়াম ব্যাপারী। মা শকুন্তলা মাহেশ্বরী ছিলেন একজন সাধারণ গৃহকর্ত্রী। সন্দীপ মহেশ্বরী খুব একটা গরীব পরিবারের সন্তান না হলেও এ কথাটিও আবার বলা চলে না যিনি যে তিনি ছিলেন ‘আলালের ঘরের দুলাল’ । একজন উচ্চমধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান সন্দীপ মহেশ্বরীর স্কুল শিক্ষা শুরু হয় দিল্লিতেই। তিনি ছোটবেলা থেকেই খুব চঞ্চল প্রকৃতির ছেলে ছিলেন ।

বাদানুবাদ তাঁর সাথে ছোটবেলা থেকেই সবসময় লেগেই থাকত। তবে তা সত্ত্বেও সন্দীপ কখনোই পড়াশোনাকে অবহেলা করে কিছু করেননি। একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবে সন্দীপ মাহেশ্বরী প্রত্যেকবারই বেশ ভাল নম্বর নিয়ে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতেন । তবে তিনি কখনো নিজের ওপর সন্তুষ্ট হতেন না; তিনি নিজের জীবনের ইতিবাচক দিক টির থেকেও নেতিবাচক দিকটিকে আগে দেখতেন এবং মানসিকভাবে নিজেকে সবসময় একলা মনে করতেন। লাজুক প্রকৃতির ছেলেটির স্কুল লাইফে হাতে গোনা কয়েকটি মাত্র বন্ধু ছিল । নেগেটিভ মানসিকতার এই ছেলেটি ছোটবেলা থেকেই নিজের ভালো গুণগুলিকেও খারাপ হিসেবে ভাবত এবং দেখত। 

প্রাথমিক জীবন

জীবনযুদ্ধের সূত্রপাত, Sandeep Maheshwari’s life struggle

সন্দীপ মাহেশ্বরী দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় তাঁর বাবার রূপ কিশোরের অ্যালুমিনিয়ামের ব্যবসাটি দুর্ভাগ্যবশত বন্ধ হয়ে যায় আর যার কারণে তাদের পরিবার আর্থিক সঙ্কটের প্রকোপে পড়ে। পরিবারের আর্থিক সমস্যা দূর করার সম্পূর্ণ দায়ভার এই অপরিণত বয়সেই সন্দীপ মাহেশ্বরীর কাঁধে এসে পড়ে। পরিবারে সাহায্য করতে তিনি STD বুথ ও অন্যান্য ছোট খাটো জায়গায় কাজ করতে থাকেন এবং সেখান থেকে প্রাপ্ত সামান্য পয়সাকড়ি দিয়ে তাঁর সংসার চলত । এও শোনা যায় যে তিনি জন্মদিনে বাবার থেকে উপহার হিসেবে প্রাপ্ত একটি দু চাকার বাহন ও মাঝেমধ্যে ভাড়া দিয়ে সেখান থেকেও অর্থ উপার্জন করতেন।

তবে এত প্রতিকূল পরিস্থিতি এবং এত কষ্টের মধ্যেও তিনি তাঁর স্কুলের পড়া কখনো বন্ধ করেননি । সন্দীপ বোর্ড পরীক্ষায় উর্ত্তীর্ণ হয়ে ১১ ক্লাসে পড়াকালীন, রুচি নামের একটি মেয়ের সাথে তার একটি সম্পর্ক হয় এবং বর্তমানে স্কুলজীবনের সেই ভালোবাসার মেয়েটিই হলো আজ তাঁর একমাত্র স্ত্রী রুচি মহেশ্বরী ।

জীবনযুদ্ধের সূত্রপাত

উপার্জনের লক্ষ্যে, In search of livelihood 

সন্দীপ ১২ ক্লাসে উত্তীর্ণ হওয়ার পর থেকেই তাঁর মনে অর্থ রোজগার করার অদম্য ইচ্ছা তৈরী হয় ।সেই উদ্দেশ্য পূরণ করতে তিনি লোকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ঘরোয়া জিনিসপত্র বিক্রি করতে শুরু করে দেন। এবং তা দিয়ে যেটুকু আয় হতো তার সবটাই তাঁর পরিবারের আর্থিক সাহায্যের জন্য দিয়ে দিতেন ।

নৃত্যগুরু উদয় শঙ্করের জীবনকাহিনী – Uday Shankar Biography in Bengali

কলেজ জীবন, College life of  Sandeep Maheshwari

সন্দীপ মাহেশ্বরী এরপর দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্ত কিরোরি মল কলেজ থেকে B.Com পড়া শুরু করেন এবং তারই পাশাপাশি মডেলিং ও ফটোগ্রাফি নিয়েও চর্চা করতে থাকেন ।তবে দুর্ভাগ্যবশত মডেলিং জগতে চূড়ান্ত ব্যর্থ হওয়ার পর তিনি ফটোগ্রাফিতেই পুরোপুরি ভাবে মনঃসংযোগ দিয়েছিলেন ।কিন্তু কলেজে পড়াকালীন সময়ে তাঁর পরিবারের আর্থিক অবস্থা আবার খারাপ হতে থাকে আর যার ফলে সন্দীপ ২০০১ সালে একটি Multi Level মার্কেটিং কোম্পানী Japan Life-এ যোগ দেন কাজ করার উদ্দেশ্য নিয়ে ।কিন্তু সেই কোম্পানীতে তিনি বেশিদিন কাজ করে উঠতে পারেননি কারণ সেই সময় থেকেই তাঁর ভিতরে একজন Entrepreneur হওয়ার অদম্য ইচ্ছা একটি জেদে পরিণত হয়ে গিয়েছিল ।

কলেজ জীবন

জীবিকার পথে ; নিজের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে সন্দীপ মাহেশ্বরী, career and on the way towards dream fulfillment

২০০২ সালে যখন সন্দীপ সেই মার্কেটিং কোম্পানী থেকে অল্প কিছু অর্থ উপার্জন করে বেরিয়ে আসেন, তখন তিনি সেই কোম্পানিতে ই কর্মরত তাঁর তিনজন সহকর্মীর সঙ্গে মিলিত হয়ে পার্টনারশীপে একটি নতুন কোম্পানী তৈরী করেন । তবে হতাশা সেখানেও পিছু ছাড়েনি তাঁর । মাত্র ৬ মাসের মধ্যেই তাঁকে সেই কোম্পানী থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল। কর্মহীন অবস্থায় থাকার ফলে তাঁর জমানো অর্থ ও ধীরে ধীরে কমে যেতে লাগছিল। তিনি মনস্থির করলেন যে তিনি একটি মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট সম্বন্ধীয় বই রচনা করবেন কিন্তু এবারও দুর্ভাগ্যবশত তাঁর লেখা বইটি তেমন ভাবে জনপ্রিয়তা লাভ করল না যার ফলে বিক্রি হলোনা কোথাও ।তিনি আবার দেখলেন ব্যর্থতার মুখ ।

সফলতার সূর্যোদয়, way to success

একটি কথা বাস্তব সত্য যে জীবনে আমরা যা যা শিখি তা কখনো ব্যর্থ যায় না । এবং সেই সত্যটি প্রযোজ্য হলো সন্দীপ মাহেশ্বরীর জীবনেও। 

যখন তিনি মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট সম্বন্ধীয় বই লিখতে আরম্ভ করেছিলেন সেই সময় তিনি অনেক এমন মূল্যবান বই অধ্যয়ন করেছিলেন যার ফলে তাঁর বিজনেস এবং মার্কেটিং সম্বন্ধে বিশাল জ্ঞান জন্ম নেয়  যা কিনা সন্দীপকে তাঁর ভবিষ্যৎ জীবনে নিজের কোম্পানি তৈরী করার ক্ষেত্রে এক বিশেষ অনুপ্রেরণা জোগায়। 

যখন সন্দীপ মহেশ্বরী কলেজে পড়তেন, সেই সময় তিনি পার্ট-টাইম মডেলিংও করেছিলেন যেখানে তাঁকে চূড়ান্ত ব্যর্থতার সম্মুখীন হতে হয় । তার সাথে সাথে ফটোগ্রাফির সম্পর্কে তাঁর একটি বিশেষ ঝোঁক থাকার কারণে সন্দীপ এবার ফটোগ্রাফিতে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার সিদ্ধান্ত নেয় পাকাপাকি ভাবে ।সন্দীপ মহেশ্বরী মাত্র ৭০০০ টাকার ক্যামেরা কিনে ও মাত্র ৭ দিনের ফোটোগ্রাফি কোর্স করে নিজের জীবনযাত্রা শুরু করেছিলেন।

ক্রমশ ফটোগ্রাফি থেকে তাঁর ভালো আয় হওয়া শুরু হয়ে যায় এবং ফটোগ্রাফির মার্কেটে তাঁর ধীরে ধীরে পসারও বাড়তে থাকে । উচ্চাকাঙ্ক্ষী সন্দীপ, ফটোগ্রাফি ব্যবসায় নিজের নাম বানানোর জন্য তিনি Limca Books of Records-এ একটি ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বানানোর প্রচেষ্টা করেছিলেন এবং সে ক্ষেত্রেও সফলও হতে পেরেছিলেন ।২০০৩ সালে তিনি যে ওয়ার্ল্ড রেকর্ডটি করে ছিলেন, যেখানে তিনি মাত্র ১০ ঘন্টা ৪৫ মিনিটের মধ্যে ১২২ জন মডেলের ১০০০০টি ফটোশুট করেন আর তাই Limca Books of Records-এ স্থান পেয়েছিল। 

সফলতার সূর্যোদয়

আলোর দিশারি ভগিনী নিবেদিতা ~ Sister Nivedita Biography in Bengali

নিজস্ব ওয়েবসাইট ; ইমেজ বাজার, Image bazaar

এই সফলতার পর সন্দীপ মাহেশ্বরী তাঁর নিজের প্যাশনকে একটি বড় ব্যবসায়ে রূপান্তরিত করবার জন্য সম্পূর্ণরূপে চেষ্টা করতে লাগলেন। 

তিনি একটি ওয়েবসাইট নির্মানের কথা ভাবেন আর ২০০৫ সালে তিনি Web Developer নিযুক্ত করে Images Bazaar ওয়েবসাইট তৈরীর কাজে মনোনিবেশ করেন আর ফলস্বরূপ ২০০৬ সালে ভারতীয় ইন্টারনেট জগতে প্রথমবারের জন্য শুরু করা হয় করা হয় ImagesBazaar.Com ওয়েবসাইট টি ।এই ওয়েবসাইটটির বিশেষত্ব হল এটি সেই সময়ে তৈরী প্রথম এমন সাইট ছিলো যা শুধুমাত্র ভারতীয় মডেলদের ফটোগ্রাফ অনলাইনে বিক্রি করতো ।তবে সাইট চালু করার পরও সেখানে কোনো ছবি সেইভাবে বিক্রি হচ্ছিলনা আর তার প্রধান কারণ ছিল ওয়েবসাইটের ধীর গতি এবং ক্রেতারাও সেই কারণে অসন্তুষ্ট ছিল ।

এবার সন্দীপ মাহেশ্বরী তাঁর এই ভালবাসাকে বড় একটি ব্যবসায় রুপান্তরিত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করতে থাকেন এবং মানুষের ভিতর যদি কিছু পাওয়ার জেদ বা গড়ে তোলার অদম্য ইচ্ছা একবার তৈরী হয়, তাহলে সে শতবার আঘাত পাওয়ার পরও ভেঙ্গে পড়েনা বরং সমাধান বার করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে আর অনুরূপভাবে নিজের স্বপ্নকে পূরণ করার জন্য সন্দীপ মাহেশ্বরী ও ঠিক একই ভাবে মরিয়া হয়েই উঠেছিলেন আর তিনি পুরো ৮দিন স্নান-খাওয়া ভুলে নিজের অফিসেই পড়েছিলেন ওয়েবসাইটের Slow Speed-কে নির্মূল করার উদ্দেশ্য নিয়ে ।

তিনি দিনরাত ইন্টারনেট ও প্রোগ্রামিং শেখার চেষ্টা করতে থাকলেন এবং অবশেষে তিনি তাঁর ওয়েবসাইটের ডাটাবেসে, সাইটের ধীর গতি হওয়ার কারণ গুলোকে ধরতে পারলেন। আর তারপর তিনি ওয়েব ডেভেলপার এর সহযোগীতায় সেই সমস্যাটির তাড়াতাড়ি সঠিক সমাধানও বার করে ফেললেন । ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই খোলা গেল তাঁর ওয়েবসাইট এবং গতি বাড়ার সাথে সাথে বিক্রিও বৃদ্ধি পেল ধীরে ধীরে। বর্তমান সময়ে ImagesBazar.Com এর বার্ষিক টার্নওভার প্রায় ১০ কোটি টাকার কাছাকাছি ।

ইমেজ বাজার

অবদান, Contribution

আমাদের সকলের প্রিয় সন্দীপ মাহেশ্বরী ভারতবর্ষের একমাত্র বড়মাপের Inspirational Speaker যিনি কিনা একদম বিনামূল্যে নিজের মোটিভেশনাল সেমিনার আয়োজন করে থাকেন এবং ভারতের প্রত্যেক যুব সম্প্রদায়কে ইতিবাচক চিন্তাধারায় উদ্বুদ্ধ করার পাশাপাশি তাদের তিনি নিজের বাস্তব থেকে আহরণ করা জ্ঞানও তাদের সাথে ভাগ করে থাকেন ।তিনি মনে করতেন যে প্রত্যেকটা মানুষের ততটুকু অর্থই উপার্জন করা উচিত যতটুকু তাদের নিজেদের বা নিজের পরিবারের এবং সমাজের বাকি মানুষদের কল্যাণের স্বার্থে কাজে আসতে পারে । সন্দীপ মাহেশ্বরী র কাছে টাকার অঙ্ক হলো শুধু একটি সংখ্যা মাত্র আর সেই সংখ্যার প্রকৃতি সর্বদাই অসীম যার কোনো শেষ নেই । তাই যত টাকাই কেউ উপার্জন করুক না কেন সেটা সর্বদা কম বলেই মনে হবে তার কাছে ।

অবদান

সন্দীপ মহেশ্বরীর প্রাপ্ত পুরস্কার সমূহ, Awards and Recognition

 **Entrepreneur India Summit

 **Business World

**Star Youth Achiever Award

**Pioneer of Tomorrow Award

কুমার শানুর জীবনী, বিতর্ক ও বিখ্যাত কিছু গান – Kumar Sanu Biography, Age, Wife, Actual Name, Controversies in Bengali

সন্দীপ মহেশ্বরীর প্রাপ্ত পুরস্কার সমূহ

সন্দীপ মাহেশ্বরীর কিছু তাৎপর্যপূর্ণ উদ্ধৃতি: Meaningful quotes by Sandeep Maheshwari

**“চিন্তা না করে করা কাজ এবং কাজ না করে শুধু চিন্তা করা, আপনাকে ১০০% অসফলতা দেবে”

** “সব সময় মনে রাখবেন আপনি আপনার সমস্যার থেকে অনেক বেশি বড়”

**“অন্যরা আপনার ব্যাপারে কি ভাবে তার থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো আপনি নিজের ব্যাপারে কি ভাবেন”

**. “জীবন আপনার জন্য অপেক্ষা করছে, তাই আপনার সেরাটা তাকে দিন”

** “হাজারটা নয়, আপনি যা করতে চান তার জন্য একটি বড় কারণ খুঁজুন, সেটাই যথেষ্ট”

**. “আপনি যদি সেই ব্যক্তির সন্ধানে থাকেন যে আপনার জীবন পরিবর্তন করে দেবে, তাহলে একবার আয়নার সামনে তাকিয়ে দেখুন”

**. “একটি ইচ্ছা কিছুই বদলাতে পারেনা, একটি সিদ্ধান্ত কিছু বদলাতে পারে, কিন্তু একটি নিশ্চয়তা সব কিছুই বদলে দিতে পারে”

** “ময়দান ছেড়ে চলে যেওনা; প্রতীক্ষাও করোনা, শুধু চলতে থাকো”

** “জীবনে যদি কিছু করতে চাও তাহলে সত্যিটা বলো, ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে কথা বলোনা”

**“সবচেয়ে বড় রোগ, কি বলবে লোক”

পরিশিষ্ট , Conclusion

তাই বন্ধুরা, যদি আপনার জীবনে কিছু করতে হয় যা কঠিন এবং আপনাকে প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে থেকে করতে হতে পারে তবে নিজেকে আগে বিশ্বাস করতে শিখুন। সন্দীপ মাহেশ্বরীর জীবন এরই এক জ্বলন্ত উদাহরণ কারণ তিনি নিজেকে বিশ্বাস করতেন এবং নিজের স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করার কোনো প্রচেষ্টা ই ব্যর্থ হতে দেননি। তাই বিরাট সফলতার চূড়ান্ত আসিয়ানায় তিনি আজ বিরাজমান। 

 সন্দীপ মাহেশ্বরীর জীবন

Frequently Asked Questions

সন্দীপ মাহেশ্বরীর জন্ম কোন সালে?

১৯৮০ সালের ২৮ শে সেপ্টেম্বর

সন্দীপ মাহেশ্বরীর তৈরী ওয়েবসাইটের নাম কি ?

ইমেজ বাজার ডট কম 

সন্দীপ মাহেশ্বরীর স্ত্রীর নাম কি?

রুচি মাহেশ্বরী 

সন্দীপ মাহেশ্বরী প্রথম জীবনে কোথায় কর্মরত ছিলেন?

একটি Multi Level মার্কেটিং কোম্পানী Japan Life-এ তিনি কর্মরত ছিলেন ।

ImagesBazar.Com এর বার্ষিক টার্নওভার কত?

প্রায় দশ কোটির কাছাকাছি। 

Viral Telegram Channel 🔥

Recent Posts

link to আমারে করো তোমার বীণা গানের কথা । Aamare Koro Tomar Bina Song Lyrics - By Rabindranath Tagore

আমারে করো তোমার বীণা গানের কথা । Aamare Koro Tomar Bina Song Lyrics - By Rabindranath Tagore

নিত্য নতুন সৃষ্টির সাথে তাল মিলিয়ে বর্তমান যুগেও ঠিক একইভাবে প্রাসঙ্গিক...